সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ০১:১৬ অপরাহ্ন

নবীনগরে মোবাইল কোর্টের অভিযান

নবীনগর উপজেলা প্রতিনিধি / ১৩ বার
আপডেট : বুধবার, ১৩ মার্চ, ২০২৪
নবীনগরে_মোবাইল_কোর্টের_অভিযান
ছবি: প্রতিদিনের বার্তা

পবিত্র রমজান মাসের শুরুতেই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলায় ভোক্তা পর্যায়ে দাম বেড়েছে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য দ্রব্যের। সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে চাহিদা সম্পন্ন খাদ্য দ্রব্যের। নিত্য প্রয়োজনীয় অনেক খাদ্য দ্রব্যের দাম তিন-চার দিনের তুলনায় পাঁচ টাকা থেকে শুরু করে দশ, পনেরো কিংবা বিশ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। আবার কোনোটিতে বেড়েছে দ্বিগুন। দ্রব্য মূল্যের এমন ঊর্ধ্বগতিতে নাভিশ্বাস জন সাধারণের। সাধারণ ক্রেতাদের দাবি- যে ভাবেই হোক, পবিত্র এই রমজান মাসে অন্তত নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য দ্রব্যের দাম যেনো সাধারণের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রাখা হয়। আবার ব্যবসায়ীরা বলছেন, ‘শুধু নবীনগর উপজেলার বাজারগুলোতেই নয় দাম বেড়েছে সারা দেশের বাজারে। এদিকে বাজারের পরিস্থিতি দেখতে ও নিয়ন্ত্রণে রাখতে ধারাবাহিক কার্যক্রম শুরু করেছে উপজেলা প্রশাসন। এরই অংশ হিসেবে পহেলা রমজান মঙ্গলবার দুপুরে সবকটি বাজারে পৃথক অভিযান পরিচালনা করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তানভির ফরহাদ শামীম। এসময় নবীনগর থানার ইন্সপেক্টর তদন্ত সজল কান্তি দাস সহ অন্যান্য পুলিশ কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রশাসনিক কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। অভিযানে বাজার পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ ও দ্রব্য মূল্যের ব্যপারে কঠোর হুশিয়ারি দেওয়া হয়। বাজারের কয়েকটি দোকান ঘুরে জানা যায়, নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য দ্রব্যের দাম বেশ কয়েকটিতে বাড়লেও কমেছে পেঁয়াজ ও সোয়াবিন তেলের দাম। দেশি পেঁয়াজ দু’তিন দিন আগেও বিক্রি হয়েছে ১শ’ থেকে ১শ’১০ টাকায়। যার বর্তমান বাজারমূল্য ৯০-৯৫ টাকা। সোয়াবিন তেল লিটার প্রতি কমেছে ৫ টাকা। আগুন লেগেছে কাঁচাবাজারে। দু’দিন আগের তুলনায় লেবু প্রতিটিতে দাম বেড়েছে গড়ে ৩-৫ টাকা। কাঁচামরিচ আগে বিক্রি হতো ৬০ টাকা। রমজান মাস শরু হতে না হতেই এক সপ্তাহের তুলনায় তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮০ টাকায়। টমেটোতে কেজি প্রতি বেড়েছে ২০ টাকা। ৩০ টাকার টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। আলুর দামও বৃদ্ধি পেয়েছে। কেজিতে বেড়েছে ৫ থেকে ১০টাকা। বাঁধাকপি ও বেগুনের দাম দ্বিগুন বেড়েছে। শাক-সবজির বাজারের অবস্থা আরও গরম। প্রতিটি শাক-সবজিতে দাম বেড়েছে প্রায় দ্বিগুন। শশা ও খিরাতে কেজি প্রতি প্রায় ২৫ টাকা দাম বেড়েছে। দাম বেড়েছে ছোলারও। তিন-চারদিন আগের ৯২ টাকার ছোলা এখন বিক্রি হচ্ছে ১শ’১০টাকায়। মশুর ডালে দাম বেড়েছে ২০ টাকা। প্যাকেটজাত লিকুইড দুধে লিটার প্রতি দাম বেড়েছে ১০ থেকে ১৫টাকা, কলায় প্রতি বিশটিতে বেড়েছে ৩০ থেকে ৪০ টাকা। এলাচি ও জিরার দ্বিগুন দাম বেড়েছে। বাড়তি দাম চিনিরও। বাজারের এমন ঊর্ধ্বগতিতে স্বস্তিতে নেই নিম্ন আয়ের মানুষেরা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানভীর ফরহাদ শামীম বলেন, আজ আমরা বাজারে অভিযান চালিয়েছি। এ সময় পাঁচটি প্রতিষ্ঠানকে পাঁচটি মামলায় জরিমানা করা হয়। সবাইকে সতর্ক করেছি। বাজারে পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে দোকানদারকে নির্দেশ দিয়েছি। কেউ যদি চলমান দামের চেয়ে বেশি দামে পণ্য বিক্রি করেন সাথে সাথে যেনো আমাকে জানানো হয়। আমরা ব্যবস্থা নেবো। পুরো রমজানেই আমাদের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।


এ জাতীয় আরো সংবাদ